নম্বর ঠিক রেখে অপারেটর বদলের সুবিধা-অসুবিধা

দীর্ঘদিন ব্যবহারের ফলে একটি মোবাইল নম্বর একজন গ্রাহকের কাছে যেমন প্রিয় হয়ে ওঠে তেমনি পরিচিতজনদের কাছেও ছড়িয়ে যায়। আর অপারেটর-ভেদে ভয়েস ও ডাটা সুবিধার কারণে একেকজন গ্রাহক একাধিক অপারেটরের সিমকার্ড ব্যবহার করতে বাধ্য হন।

এই জটিলতা এড়াতে নম্বর ঠিক রেখে অন্য অপারেটরে যাওয়ার সুযোগ করে দিয়েছে বিটিআরসি। এখন এমএনপি সেবার মাধ্যমে এক নম্বরে অন্য অপারেটরের সেবা নিতে পারবেন গ্রাহকরা। তবে অপারেটর বদল করতে গেলে গ্রাহককে যেমন চার্জ দিতে হবে তেমনি কিছু আর্থিক শর্তও মানতে হবে। আর অপেক্ষা করতে হবে তিন মাস বা ৯০ দিন। তবে অপারেটর বদল হলেও মোবাইল ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিসগুলো পেতে কোনো অসুবিধা হবে না।

রমনায় বিটিআরসি ভবনে সংবাদ সম্মেলন করে মোবাইল নম্বর অপরিবর্তিত রেখে অপারেটর পরিবর্তন বা এমএনপি সেবা চালুর ঘোষণা দিয়েছে বিটিআরসি।

বিটিআরসির ভারপ্রাপত চেয়ারম্যান মো. জহুরুল হক জানিয়েছেন, রোববার দিবাগত মধ্যরাত থেকে চালু হয়েছে এই সেবা। সোমবার (১ অক্টোবর) সকাল থেকে গ্রাহকরা সেবা পেতে শুরু করেছেন। সেবা নিতে ইচ্ছুক একজন গ্রাহককে কাঙ্ক্ষিত অপারেটরের নতুন সিম বাবদ ১০০ টাকা ও এমএনপি চার্জ বাবদ ৫৭ টাকা ৫০ পয়সা গুণতে হবে।

বিটিআরসির সিস্টেম অ্যান্ড সার্ভিস বিভাগের পরিচালক লেফটেন্যান্ট কর্নেল আজিজুর রহমান সংবাদ সম্মেলনে বলেন, আগের অপারেটরের ব্যালেন্স নতুন অপারেটরে যোগ হবে না। তবে নিয়মানুয়ায়ী আগের অপারেটরের ব্যালেন্স দুই বছর জমা থাকবে। গ্রাহক চাইলে দুই বছরের মধ্যে আগের অপারেটরে ফিরে গিয়ে ওই ব্যালেন্স ব্যবহার করতে পারবেন। আর ব্যবহার না হলে তা সরকারি কোষাগারে জমা করার জন্য বাংলাদেশ ব্যাংকের সাথে আলোচনা করা হবে।

নতুন অপারেটরে গেলে আগের অপারেটরের ইন্টারনেট বা ডাটাও যোগ হবে না জানিয়ে বিটিআরসি চেয়ারম্যান বলেন, অপারেটর বদলের সময় সম্মতি চেয়ে এসএমএস করা হবে। গ্রাহক সম্মতি দিলে অব্যবহৃত ডাটা রেখে নতুন অপারেটরে যেতে পারবেন।

নম্বর বদল হলেও মোবাইল ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিস বা এমএফএস এবং ওয়ালেট এর কোন ক্ষতি হবে না বলে জানান বিটিআরসি পরিচালক আজিজুর রহমান।

এমএনপি সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান ইনফোজিলিয়ন টেলিটেক বিডির ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মাবরুর হোসেন বলেন, অপারেটর বদলের জন্য কাঙ্ক্ষিত অপারেটরের সেবাকেন্দ্রে যেতে হবে। সেখানে ফি প্রদান করে সর্বোচ্চ ৭২ ঘণ্টার মধ্যে এমএনপি সেবা দেওয়া হবে। তবে প্রিপেইড গ্রাহকেরা একদিনের মধ্যেই এই সেবা পাবেন।

পূর্বের নির্দেশনা অনুযায়ী, সেবা পেতে আবেদনের ৭২ ঘণ্টার মধ্যে সেবা চালু হলে পরবর্তী ৯০ দিন তিনি অপারেটর পরিবর্তন করতে পারবেন না।

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Notify of
avatar
300

wpDiscuz