সালতামামি ২০১৬: টেলিযোগাযোগ খাতের সেরা ১০

আইটি লাইফ ডেস্ক :বাংলাদেশে ২০১৬ সালে টেলিযোগাযোগ খাতের অনেকগুলো বড় ঘটনা ঘটেছে। বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে সিম নিবন্ধন, রবি-এয়ারটেল একীভূত, বাংলালিংকের কর্মী ছাটাই, সিটিসেলের বন্ধ হয়ে যাওয়া, ভারতে ব্যান্ডউইথ রপ্তানি ইত্যাদি। চলতি বছরে টেলিযোগাযোগ খাতে সেরা ১০ ঘটনার বিবরণ নিয়ে আইটি লাইফ  এর বিশেষ আয়োজন।

বাংলালিংকে ট্রেড ইউনিয়ন ও কর্মী ছাটাই:

ফাইল ছবি

২৯ জানুয়ারি ৭১৯ জন কর্মী নিয়ে ‘বাংলালিংক এমপ্লয়িজ ইউনিয়ন’ বা বিএলইউই গঠন করা হয়। সংগঠনের সভাপতি উজ্জ্বল পাল ও সাধারণ সম্পাদক মো. বখতিয়ার হোসেন গত ৮ ফেব্রুয়ারি ট্রেড ইউনিয়নের নিবন্ধনের জন্য শ্রম পরিচালক বরাবরে আবেদন করেন। বাংলালিংক কর্মী শরিফুল ইসলাম ভুঁইয়ার চাকরিচ্যুত করাকে কেন্দ্র করে ১১ ফেব্রুয়ারি বাংলালিংক সিটিও তেরিহান এলহামিকে অবরুদ্ধ করা হয়। এরপর অফিসে বিশৃঙ্খলা শুরু হলে সারাদেশে বাংলালিংকের অফিস বন্ধ ঘোষণা করা হয়। এসব ঘটনার প্রেক্ষাপটে বাংলালিংকে স্বেচ্ছা অবসর স্কীম চালু করলে ১০ মার্চ ৪৮৬ জন কর্মী বিদায় নেন।

রবি-এয়ারটেল একীভূত:

ঘোষণাটি এসেছিল ২০১৫ সালে। তবে নানান আলোচনা জন্ম দিয়ে ১৬ নভেম্বর একীভূত হলো দেশের দুই মোবাইল ফোন অপারেটর রবি আজিয়াটা লিমিটেড ও এয়ারটেল বাংলাদেশ লিমিটেড। একীভূতকরণ প্রক্রিয়া শেষে রবির সিংহভাগ অর্থাৎ ৬৮ দশমিক ৭ শতাংশের মালিকানায় রয়েছে আজিয়াটা, ২৫ শতাংশ ভারতী এয়ারটেলের এবং বাকি ৬ দশমিক ৩ শতাংশের মালিক জাপানের এনটিটি ডোকোমো। একীভূতকরণের পর রবির মোট গ্রাহকসংখ্যা দাঁড়িয়েছে প্রায় ৩ কোটি ২২ লাখে। আর এর মাধ্যমে রবি দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম মোবাইল ফোন অপারেটর হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হল।

ভারতে ব্যান্ডউইথ রপ্তানি:

২৩ মার্চ ঢাকা-দিল্লী-ত্রিপুরায় যৌথ ভিডিও কনফারেন্সে বাংলাদশ থেকে ভারতে ব্যান্ডউইথ রপ্তানির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবং আগরতলা ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী মানিক সরকার। এর মাধ্যমে আসামের সাতটি রাজ্যে ১০ জিবিপিএস ব্যান্ডউইথ পাঠাচ্ছে বাংলাদেশ সাবমেরিন কেবল কোম্পানি (বিএসসিসিএল)। এদিকে ভারতে ব্যান্ডউইথ রপ্তানি করার পর প্রতিবেশি দেশ নেপাল, মিয়ানমার, থাইল্যান্ড এমনকি সিঙ্গাপুর বা ইতালির মতো কয়েকটি দেশও বাংলাদেশ থেকে ব্যান্ডউইথ নিতে আগ্রহ প্রকাশ করেছে।

বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে সিম নিবন্ধন:

এ বছর টেলিযোগাযোগ খাতে সবচেয়ে বেশি আলোচিত ঘটনা বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে সিম নিবন্ধন। নানান বাধা আসার পরেও শেষ পর্যন্ত সফলভাবে সিম নিবন্ধ প্রক্রিয়া শেষ হয়েছে। সিম নিবন্ধনে আঙ্গুলের ছাপ বেহাত হয়ে যাচ্ছে বলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক সমালোচনা হয়। এদিকে হাইকোর্ট থেকে সিম নিবন্ধন বৈধতা পায় ১২ এপ্রিল। মোবাইল ফোন অপারেটররা সিম নিবন্ধনে বিদেশ ভ্রমণসহ ১০ লাখ টাকা পর্যন্ত পুরষ্কার ঘোষণা করে। ৩০ এপ্রিলের মধ্যে বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে সিম নিবন্ধনের কাজ শেষ করার কথা থাকলেও পরে সময় বৃদ্ধি করে ৩১ মে পর্যন্ত সময় বাড়ানো হয়। আর সিম নিবন্ধনের প্রভাবে শুধু জানুয়ারি-মার্চ ৩ মাসে ২৮ লাখ এবং জুলাই পর্যন্ত মোট ২৪ লাখ সক্রিয় মোবাইল গ্রাহক কমে যায়।

গ্রামীণফোনের ১০ হাজারতম থ্রিজি বিটিএস স্থাপন:

ফাইল ছবি

গ্রামীণফোন ১০ হাজার থ্রিজি বেস ট্রান্সিভার স্টেশন (বিটিএস) স্থাপনের মাইলফলক অতিক্রম করেছে। সারা দেশের ১০ হাজারটি এলাকায় অবস্থিত এ বিটিএসগুলো দেশের প্রায় ৯০ ভাগ জনগোষ্ঠিকে থ্রিজির আওতায় নিয়ে এসেছে। গত ২৬ জুন ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম স্থানীয় একটি হোটেলে আয়োজিত অনুষ্ঠানে ১০ হাজারতম বিটিএসটি চালু করেন।

গ্রামীণফোন জানায়, এই বিশাল কাজটি সম্পন্ন করতে ১৪ লাখ ১৪ হাজার ৮৭৭ ঘণ্টা শ্রম দিতে হয়েছে। তারা ভ্রমণ করেছে ১৩ লাখ ১১ হাজার ৪০ কিলোমিটার এবং তাদের চড়তে হয়েছে ৬ লাখ ৮০ হাজার মিটার যা ৮০টি এভারেস্ট শৃঙ্গের সমান।

স্বপ্নের এমএনপি স্বপ্নেই থেকে গেল:

মোবাইল নম্বর অপরিবর্তিত রেখে অপারেটর বদলের সুবিধা বা মোবাইল নাম্বার পোর্টেবিলিটি (এমএনপি) সেবা চালু করার স্বপ্ন অনেক দিনের। এ বছর ১৮ মে এমএনপি সেবা চালু করতে চূড়ান্ত অনুমোদন দেন প্রধানমন্ত্রী। এরপর এক দফা পেছানোর পর ২৮ সেপ্টেম্বর এমএনপি নিলাম অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। নিলামে অংশ নিতে নাম লেখিয়েছিল পাঁচটি প্রতিষ্ঠান (রিভ নাম্বার লিমিটেড, গ্রীনটেক ইন্টারন্যাশনাল লিমিটেড, ইনফোজিলিয়ন বিডি টেলিটেক কনসোর্টিয়াম লিমিটেড, ব্রাজিল বাংলাদেশ কনসোর্টিয়াম, রুটস্ ইনফোটেক লিমিটেড)। তবে হঠাৎ করে ২০ সেপ্টেম্বর নিলাম স্থগিত ঘোষণা করে বিটিআরসি।

সিটিসেল: একটি জীবন্ত লাশের গল্প

ফাইল ছবি

দক্ষিণ এশিয়ার সবচেয়ে পুরাতন মোবাইল ফোন অপারেটর সিটিসেলে ৯ জুন ট্রেড ইউনিয়ন গঠন করা হয়। ১৯ জুন এর লাইসেন্সের জন্য আবেদন করা হয়। বিটিআরসির বকেয়া ৪৭৭ কোটি টাকা পরিশোধ না করার কারণে সিটিসেলের গ্রাহকদের অন্য অপারেটরে চলে যেতে নোটিশ দেওয়া হয় ৩১ জুলাই। ২০ অক্টোবর সিটিসেলের স্পেকট্রাম বন্ধ করে দেয় বিটিআরসি। এরপর নির্ধারিত সময়ে টাকা পরিশোধের শর্তে ৬ নভেম্বর পুনরায় স্পেকট্রাম খুলে দেওয়া হয়। তবে এরপর সিটিসেল নিজেরাই অপারেশন চালু করতে পারেনি। শুধু মহাখালী প্রধান কার্যালয়ে তিনটি বিটিএস চালু রেখেছে অপারেটরটি। অপারেটরটির প্রায় সকল কর্মী চাকরি ছেড়েছেন।

গতি পেয়েছে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট:

২০১৬ সালজুড়ে গতি পেয়েছে বাংলাদেশের প্রথম কৃত্রিম উপগ্রহ ‘বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট’। ৯ সেপ্টেম্বর প্রকম্পটির অর্থায়নের জন্য হংকয়ের এইচএসবিসি ব্যাংকের সঙ্গে প্রায় ১ হাজার ৪০০ কোটি টাকার ঋণচুক্তি করে বিটিআরসি। ২১ অক্টোবর এক সাংবাদিক সম্মেলনে তারানা হালিম বলেছেন, ‘বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১’ এর ইঞ্জিনিয়ারিং কাজ ৮৩ শতাংশ, অ‌্যান্টেনা তৈরির কাজ ৫৬ শতাংশ এবং কমিউনিকেশন ও সার্ভিস মডিউল তৈরির কাজ ৬৫ শতাংশ শেষ হয়েছে। সব মিলে ‘বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট’ নির্মাণের ৫০ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে। ১৮ নভেম্বর আন্তর্জাতিক টেলিকমিউনিকেশন সংস্থার (আইটিইউ) ‘রিকগনিশন অফ এক্সিলেন্স’ পুরস্কার পায় বাংলাদেশের ‘বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট’ প্রকল্প।

বেসরকারি অপারেটরে প্রথম দেশীয় সিইও মাহতাব উদ্দিন আহমেদ:

ইন্টারনেট থেকে সংগ্রহিত

দেশে বেসরকারি মোবাইল ফোন অপারেটরদের মধ্যে প্রথমবারের মতো গত ১ নভেম্বর দেশীয় ম্যানেজিং ডিরেক্টর (এমডি) এবং চিফ এক্সিকিউটিভ অফিসার (সিইও) হিসেবে মাহতাব উদ্দিন আহমেদকে নিয়োগ দিয়েছে রবি আজিয়াটা লিমিটেডের মূল কোম্পানি আজিয়াটা গ্রুপ বারহাদ। নতুন সিইও হিসেবে মাহতাবের নিয়োগের ঘোষণা গত জুলাইতে দেয়া হয়। তখন তিনি আজিয়াটা গ্রুপের বিশেষ দায়িত্বে নিয়োজিত ছিলেন। ২০১০ সালে চিফ ফিনান্সিয়াল অফিসার (সিএফও) হিসেবে রবিতে যোগদান করার আগে তিনি ইউনিলিভারের বিভিন্ন নেতৃস্থানীয় পদে ১৭ বছর দায়িত্ব পালন করেন।

আলোর মুখ দেখল ‘ডটবাংলা’ ডোমেইন:

২০১৫ সালের ১৬ ডিসেম্বর ‘ডটবাংলা’ ডোমেইনের উদ্বোধনের তারিখ নিধার্রণ করেছিলেন তারানা হালিম। তবে ওই সময়ে বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে সিম নিবন্ধনের কারণ দেখিয়ে সময় পিছিয়ে ২০১৬ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি ঠিক করা হয়েছিল। কিন্তু ওই সময়ে জানা যায়, ‘ডটবাংলা’ ডোমেইনের অনুমোদনই পায়নি বাংলাদেশ। অবশেষে ৫ অক্টোবর ইন্টারনেট করপোরেশন ফর অ্যাসাইনড নেমস অ্যান্ড নম্বরস (আইসিএএনএন) বা আইকান কর্তৃপক্ষ এই ডোমেইন বাংলাদেশের জন্য বরাদ্দ দেয়। তখন জানানো হয়েছিল ১৬ ডিসেম্বর আনুষ্ঠানিকভাবে এই ডোমেইনটি উদ্বোধন করা হবে। তবে শেষ পর্যন্ত বছরের শেষদিন ৩১ ডিসেম্বর ডোমেইনটি উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী।

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Notify of
avatar
300

wpDiscuz