বিকল্প নম্বর নিচ্ছেন সিটিসেল কর্মীরা

আইটি ডেস্ক : অনেক দিন আগে থেকেই নিজেদের সিটিসেলের নম্বরের বিকল্পে অন্য কোনো অপারেটরের নম্বর  নিতে শুরু করেছেন সিটিসেল কর্মীরা। সম্প্রতি বন্ধ হওয়ার হুমকিতে পড়া অপারেটরটির কর্মীরা সেই বিকল্প নম্বর সবাইকে এসএমএস দিয়ে জানাতে শুরু করেছেন।মূলত নেটওয়ার্ক সমস্যার কারণেই আগে থেকেই অন্য অপারেটরের নম্বর ব্যবহার শুরু করেছিলেন তারা। কিন্তু এখন যেহেতু একেবারে শেষ সময় এসে গেছে তাই তারা তাদের বিকল্প নম্বরটি সংশ্লিষ্ট সকলকে এসএমএস করে জানাতে শুরু করেছেন।

citycell-btrc-techshohor

আগামী ১৬ আগস্ট থেকে দেশের সবচেয়ে পুরোনো এই মোবাইল অপারেটরটির সেবা কার্যক্রম বন্ধ হয়ে যাওয়ার কথা। বিটিআরসি অপারেটরটির কাছে ৪৭৭ কোটি ৫১ লাখ টাকা পায়। সেগুলো পরিশোধ না করায় বন্ধের মুখে পড়েছে অপারেটরটি।

যদিও টাকা পরিশোধের জন্যে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত সময় চেয়েছে অপারেটরটি। তবে তাদের আবেদন শেষ পর্যন্ত গ্রহণ করা হবে কিনা সেটি এখনও সরকারের বিবেচনাধীন।

এর আগে টাকা পরিশোধের জন্যে এমনভাবে ১১ বার সময় বাড়িয়ে নিয়েও কোনো দেনা পরিশোধ করেনি ১৯৮৯ সালে দেশের প্রথম মোবাইল অপারেটর হিসেবে লাইসেন্স পাওয়া সিটিসেল।

লাইসেন্স পাওয়ার চার বছর পর ১৯৯৩ সালে সেবা কার্যক্রম শুরু করে অপারেটরটি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অপর এক কর্মী বলেন, এতোদিন তাও ঢাকায় নেটওয়ার্কটা পাওয়া যেতো। কিন্তু এখন তো ঢাকায়ও নেটওয়ার্ক পেতে সমস্যা। আর ১৬ আগস্টের পর পরিস্থিতি কি দাঁড়াবে কে জানে? সে কারণে আগেভাগে সকলকে বিকল্প নম্বরটা দিয়ে রাখছি।

এদিকে অপারেটরটিতে সর্বশেষ প্রায় দুই লাখ অ্যাক্টিভ সংযোগ ছিল। এই গ্রাহকরাও ইতোমধ্যে অন্য অপারেটরে চলে গেছে বলেও ধারণা করছে সিটিসেলের কর্মীরা। কারণ গত কয়েক দিনে তাদের দৈনিক রেভিনিউ চরমভাবে পড়ে গেছে।

নানা পর্যায়ে হাত বদল হয়ে বর্তমানে সিটিসেলের ৪৪ দশমিক ৫৪ শতাংশ শেয়ারের মালিক সিঙ্গাপুরের টেলিযোগাযোগ সেবাদাতা কোম্পানি সিংটেল-এর হাতে রয়েছে। আর সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোর্শেদ খানের প্যাসিফিক মোটরর্সের রয়েছে ৩৭ দশমিক ৯৫ শতাংশ শেয়ার। এছাড়া ১৭ দশমিক ৫১ শতাংশ শেয়ার রয়েছে ফার ইস্ট টেলিকমের হাতে। সেটিও আসলে মোর্শেদ খানেরই আরেকটি কোম্পানি।

শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Notify of
avatar
300

wpDiscuz